To play, press and hold the enter key. To stop, release the enter key.

সত্যের স্বাক্ষ্য - সাইয়্যেদ আবুল আ'লা মওদূদী 

সাক্ষ্য: নিজে যা জানে তা অন্যের কাছে বলা বা যথাযথভাবে প্রকাশ করার নামই সাক্ষ্য।

 

সত্যের সাক্ষ্য: আল্লাহর পক্ষ থেকে যে সত্য এসেছে, উদ্ভাসিত হয়েছে, তার সত্যতা দুনিয়ার সামনে এমনভাবে প্রকাশ করা যাতে দ্বীনের যথার্থতা প্রমানিত হয়, এটাই সত্যের সাক্ষ্য।

 

সত্যের সাক্ষ্য দানের গুরুত্ব:

১. সাক্ষ্যদানের ভিতিত্তেই হাশরের ময়দানে ফয়সালা হবে।
২. সাক্ষ্যদান সকল নবীর সুন্নাত।
৩. সত্যের সাক্ষী না হলে যালেমদের অন্তভূক্ত হবে।
৪. সাক্ষ্য না দিলে দুনিয়ার লাঞ্জনা, অপমান, অধ:পতন চেপে বসবে।
৫. সাক্ষ্য দান আল্লাহর পক্ষ থেকে দেয়া দায়িত্ব।

সাক্ষ্যদানের প্রকারভেদ: ২ প্রকার


১. মৌখিক সাক্ষ্য:
নবী (সা:) এর মাধ্যমে আমাদের কাছে যে সত্য এসে পৌছেছে তা বক্তৃতা ও লেখনীর মাধ্যমে মানুষের কাছে সহজবোধ্য করাকে মৌখিক সাক্ষ্য বলে।
দাওয়াতের সকল পদ্ধতি প্রয়োগ ও জ্ঞান বিজ্ঞানের সকল উপাদান ব্যবহার করে ইসলামকে একমাত্র সঠিক পরিপূর্ণ বিধান হিসাবে প্রমান এবং প্রতিষ্ঠিত বাতিল মতাদর্শের দোষ ক্রটি তুলে ধরা।
২. বাস্তব সাক্ষ্য:
যা মুখে বলা হয় তা বাস্তবায়নের মাধ্যমে মানুষের সামনে তার সত্যতা প্রমান। সৌন্দর্য্য ও কল্যানকারীতা প্রদর্শন করা নয়।

 

সাক্ষ্য দানের পূর্ণতা: আল্লাহর দ্বীনকে পরিপূর্ণভাবে মানতে পারলেই দ্বীনের পূর্ণ সাক্ষ্য প্রদান হবে। ইসলাম প্রতিষ্ঠিত না থাকলে দ্বীনকে পরিপূর্ণভাবে মানা সম্ভব নয়। সুতরাং শুধুমাত্র দ্বীন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই সাক্ষ্যদানের পূর্ণতা সম্ভব।

 

সত্য গোপনে শাস্তি:

১. দুনিয়ার শাস্তি:

 

  • গোটা দুনিয়ায় মুসলমানরা নির্যাতিত।

  • পূর্বে ইসলাম প্রতিষ্ঠিত স্থানগুলো মুসলমানদের স্থানচু্যত হয়ে যাওয়া।

২. আখেরাতের শাস্তি: সত্যের সাক্ষ্য না দিলে দুনিয়ায় অশান্তি সৃষ্টি হয়। দায়িত্ব পালন না করার কারনে পরকালে কঠিনতম শাস্তি ভোগ করতে হবে।

 

মুসলমানদের সমস্যা:

 

  • চিন্তার ক্রটি: অন্যান্য জাতি পার্থিব যেসব সমস্যাকে মূল সমস্যা হিসেবে গুরুত্ব দেয় আমরাও সেসব বিষয়কে একই ভাবে গুরুত্ব দিই।

যেমন: সংখ্যালঘু হিসেবে মুসলিম।

  • সঠিক চিন্তা: যাবতীয় সমস্যার উৎস মূল দায়িত্ব তথা সত্যের সাক্ষ্যদান হতে বিমুখতার পরিনতি। কারন এ দায়িত্ব পালন না করার কারনেই অন্যেরা এসব সমস্যার সৃষ্টির সুযোগ পাচ্ছে।

যেমন: আর যে সংখ্যালঘু মুসলিম জাতি সাক্ষ্যদানের মাধ্যমে সংখ্যাগুরুত্ব এ পরিনত হয়েছে।

 

সমস্যার সমাধান:
যাবতীয় সমস্যা সমাধানের পথ হচ্ছে যথাযথভাবে সত্যের সাক্ষ্য পেশ করা।
আসল সমস্যা: দুনিয়ায় মুসলিম হিসাবে প্রতিনিধিত্বের দাবী ইসলামের, বাস্তবে ইসলাম বিরোধী মতবাদের প্রতিনিধিত্ব করি।

 

ফলাফল:

  • দুনিয়ার মানুষ ইসলাম সম্পর্কে ভুল তথ্য জানছে।

  • = মানুষ আমাদের কারনে ইসলাম সম্পর্কে জানতে পারছে না।

মুসলমানদের দুনিয়ায় ব্যর্থতার কারণ: ইসলামের লেবেল খুলে দিয়ে কুফরী গ্রহন করলে দুনিয়াবী জিন্দেগী চাকচিক্যময় হত। কিন্তু নাম ও কর্ম সংঘাত হওয়ায় উন্নতিও বন্ধ।

 

আমাদের কর্মপদ্ধতি:

  • মুসলমানদের ইসলাম সম্পর্কে মৌলিক জ্ঞান প্রদান এবং তাদের দায়িত্ব সম্বন্ধে সচেতন করা।

  • শুধু ব্যক্তিজীবন নয় ইসলামকে মানা এবং প্রতিষ্ঠার জন্য সামষ্টিক বা সংগঠনিক প্রচেষ্ঠা প্রয়োজন। এটা বুঝিয়ে দেয়া।

 

কাজের পথ:

  • আমাদের নিয়ম, শৃংখলা, কর্মনীতি, আকীদা ভাল লাগলে আমাদের সাথে যোগদান করা।

  • অন্যদলকে আমাদের চেয়ে খাটি মনে হলে সে দলে যোগ দেয়া।

  • কোন দল খাটি মনে না হলে নিজের উদ্যোগে দল গঠন করা।

 

দ্বীনের একাধিক দল গঠনের আশংকা: আপাতত দৃষ্টিতে ইসলামী দল বেশি হলে বিশৃংখলা দেখা দিবে।


একাধিক দল গঠনের কারণ:
নবী করীম সা: পরিচালিত সংগঠনই শুধুমাত্র “আল জামায়াত” হিসাবে দাবী করতে পারে। অন্য কোন দলকে “আল জামায়াত” বলা যাবে না। সুতরাং দ্বীনের জন্য একাধিক দল গঠনে বাধা নেই।


ফলাফল: নিষ্ঠার সাথে সবাই কাজ করলে লক্ষ্য যেহেতু একই সেহেতু মাঝপথে মিলিত হবে।